February 26, 2011

Rashichokro


Amar soptahaanter mukhyo akorshoN, thakumake phone kora. paRar sokkoler hNaRir khobor, Tukaidar meyer Bhuugoler nombor, pasher baRir Chumkir idaning sondehojonok raat kore baRi phera ebong Kundu-baRir chheler ekebare gollay jawar khobor arekbar jhaliye newar sujog to achhei, upri paona, e soptaher jonyo amar shubho sonkhya ebong shubho rongti jene newa.
E soptahe amar ‘lucky’ rong holud, sobuj ar halka beguni, soubhagyosuuchok sonkhya jothakrome 27, 1 ebong 4. tachhaRao soptaher aadyobhage manosik piiRa, modhyobhage sontaner swasthyo songkranto dushchinta ebong antobhage jole dube morar sombhabona porilokkhito hoitechhe.
Thakumake bollam je gym-e jabona kotha dite parchhina, kintu swimming pool theke jothasombhob duure duure thakbo. gaa chhNuye bolchhi.
Thakumar rashiphol niye thatta kori bote, kintu ami kina Ingriji shikkhay shikkhito, tai Barnes and Noble-e edik odik takiye Linda Goodman khule jhot kore nijer somporke duchar kotha dekhe nite bhulina.
KaroN abishwasyo mone holeo, sriimotii Linda-r moto kore amake aj porjonto keu bojheni. amar choritrer emon bishod bishleshoN, amar doshguNer emon nirbhul borNona ar kauke dite dekhini ami ejabot. jotoi bhalomanush seje thakina keno, Linda dhore phelechhen ami careless, superficial, dayitwognanhiin, tactless. mukher opor apriyo sotyo kotha bolte amar konodin i badhena.
Bondhura rege jan, dukkho pan. kintu kii korbo bolun, sei chhotobela thekei honesty amar priyotomo virtue. Linda janen.
Mene niyechhi. doshguN miliye nijeke chine niyechhi. nijer chawapawake maapmoto ketechhNete niyechhi. jNara ja khushi dekhe preme poRte paren, moner mil athoba favourite singer, ami Linda-r premer compatibility talika na miliye preme poRina.
Ba eddin poRtamna bola bhalo. kichhudin agei khobor pawa gechhe je prachiinkale Greece deshe, saap golay jhuliye bonebadaRe ghure beRaten ek rohosyomoy kobiraj Ophiuchus, tNar naame arekti sunsign achhe, ebong poRbi to poR amar jonmodinti-i tar aaotay giye poRechhe.
Dekhun dekhi, dibbi nijer mone achhi, karo baRa bhate chhai dichchina, hothat e kii atyachar. agotya noRe boste holo. ediksedik ghNeteghute dekhte giye dekhi kNecho khNuRte saap!
Amar je motisthiir nei, se bishoye maa anekdin dhore sabdhan korchhilen, kintu Linda-r boite kotthao lekha nei bole ami kaan dichchhilam na. ekhon dekhchhi maayer kothai thhik. ami shudhu je chanchalmoti tai noy, ami hingsute, raagii, swarthopor ebong mitthye proshongsay gole jai.
Amar ghor sondeho hochhe je kothagulo nehat gNajakhuri goppo noy. kintu sobtheke dukkher byapar, era kotthao honesty-r kothata lekheni. joghonyo.
Jai hok, bhebe dekhlam jekhane sekhane apriyo sotyo bole lokjonke khamoka chotiye dewa kono kaajer kotha noy. ekdik theke bhaloi hoyechhe je amar oi bodguNta nei.
Eisob bhebetebe sobe matha thhanda kore boste jabo emon somoy arek jaygay dekhi likhechhe je 13 nombor sunsign-tign sref hujug. Linda abhranto. ami dayitwognanhiin ebong careless. hNya, honest o.
Tobe etosob golmaler por Ingriji moter rashichokrer proti amar bishwas khanikta tole gechhe, se kotha swiikar kortei hochchhe. era nijeder mon sthir kore uthhtei golodghormo, amar swobhabchorito, bhalomondo bicharer gurudayitwo ami eder haate chhaRte parchhina.
KhNujepete tai sobuj T shirt-ta pore beriyechhi aj jacket-er tolay. ar busstand-er samner gate-tar bodole Stadium-er samner gate-ta diye gym-e dhukbo. ektu ghurpoth hobe thik i, kintu swimming pool ta eRano jabe.

February 22, 2011

Rokte rangano...


Sotyi kotha bolte gele matribhashar sathe somporkota shuru thekei ebRokhebRo chhilo. anekta Class 7-e pasher paRar Bubaiyer sathe somporker moto, jodi otake ‘somporko’ bola jay adou.
Emnite dekhteshunte dibbi premer motoi. School-e jawar pothe chokhachokhi. dujoner school theke pherar somoyer, ghoRir kNata miliye aschorjo somapoton. Station jawar pothe ekdin bondho karkhanar dewale chalk diye lekha daaknaam abishkar.
Abar thik prem noy-o. ekjoner baba office-e jan, arekjon JK Steel bondho hoye jabar por apatoto ‘between jobs’. ekjoner maa je beauty parlour-e sohokari, se dokane arekjoner maa niyomito khodder. koyek bochhor por ekjon College Street-er mukhe 44 nombor bus theke running-e namchhe, arekjon Boubajare Electricals-er dokane part time.
Somporko ebong somporker safolyer sombhabyota niye, ar 5 ta bishoyer motoi, chhotoder bichar bibechona riitimoto sposhto. priyo bishoy ki?-r uttore Anko, Ingriji (bisheshoto Bangla medium school-e) ar Life Science-e je romroma, seta chhelemanushi kheyal noy ekebarei. Itihaas Bhuugoler bajaro emon kichhu bhalo na, kintu sobtheke koruN dosha amader ei chirokele duyoraaNitir, Bangla.
Barshik puroskar bitoroNiite Banglay highest nomborer jonyo kono puroskar nei, Banglar jonyo grihoshikkhok rakhle loke haase, furfure Bangla bolte parle rastaghaat, tram-e bus-e duniya sombhrome noto hoye poth chheRe deyna.
15 bochhor boyese, Ingriji bolte para ar na bolte para lokeder emonki dekhteo alada hoy.
Baba maayer proti gobhiir abhiman chhilo eksomoy. amake sarajiiboner moto khNoRa kore dilen sref nijeder kheyal choritartho korben bole? P.K. De Sarkar ar ‘A Tale of Two Cities’-er abridged songskoroN niye pechhone lege theke tNarao haar na manar loRai chalachchhilen abiroto. kintu oi boyose, British Council-er Education Fair-e ghorbhorti Ingriji kothopokothoner majhkhane dNaRiye jokhon akkhorik gola diye shobdo berochchhena, kaan diye holka, chokh phete jol aasar upokrom, tokhon ma babar proti sohanubhuuti jogaR kora shokto.
Se anekdiner kotha. tarpor Rishrar ghaat diye koto jol boye gechhe, bhasha shikkhar moddhye bolta parar angshotai je sobtheke soja seta bojhar boyos hoyechhe amar, mathar bhetor protyekti bakyo Bangla theke Ingrijite anubad kore, stamp mara bheto Bangali uchcharoNe bolar chaiteo beshi lojja pawar moto byapar ghote prithibiite, se byapare sondeho ghuchechhe. sobtheke boRo kotha, Subway counter-er epare mofoswoler Bangla medium Ingriji ar jhNa-chokchoke shohure English medium Ingriji je ekirokom asohay, seta chormochokkhe dekhechhi.
Baba maayer opor abhiman ghuche gechhe kobe monei nei. ekhon borong Shukrobarer adday Bangla bonam Ingriji medium niye juddho badhle, matribhashar pokkhe gola phatai. bondho karkhanar dewale abchha hoye asa daaknaam Nabab chhap biRir bignapone chapa poRe gechhe, seo bohujug holo. tobu dekhun, likhchhi likhbo kore, sob kaaj sere ei post ta likhte 21-e February-r raat bhor hoye 22 hoye gelo.
DuyoraNiir bhagyo, sohoje ki bodlay?

February 17, 2011

Aporichito


Sedin jomat bNadha ice-e pichhle poRe amar ek junior-er goRali mochkechhe, kobji ghurchhe na, 3 rattir danpash phire showa bondho. eta or prothom shiiter prothom achhaR. “apnar anubhuuti” jante chaway khanikkhoN chup kore theke Jishnu bollo, “ek rasta bhorti lok, keu ekpaa egolo porjonto na!”
tui to nijei uthhe poRechhili, haaRgoR bhangeni dekhe bojha jachchhilo nishchoy, ar dheRe chhele achhaR kheyechhis, sokkole hNaa hNaa kore chhute elei beshi embarrassed hotis na?” Jishnu dwidhanwito ghaaR helay.
Oke santwona dilam thiki, kintu amar nijero je majhe majhe abak lagena ta noy. saRe 4 bochhor dhore eki dokan theke ektai ice cream kine khachchhi, (mane ice cream noy thhik, “fat free soft serve vanilla yogurt, in a cup please.”) counter-er opare jNara thaken tNader mukhgulo amar mukhostho hoye gechhe, ami nishchit amar mukhta tNadero, kintu prothom diner hese “How are you?” bolata 4 bochhor pore aj bikeleo abikol ek roye gechhe.
Er jaygay Keshtoda hole? sorsher tel ar tejpata thongay purte purte tini amar ager soptaher sordita sarlo kina khobor niten, ko’din dhore babake bajare dekha jachchhe na keno khNoj korten, amio jante chaitam Keshtodar khuki natni shesh porjonto pasher golir ‘Satyabharati Sishutirtha’y bhorti holo naki 3 te station ujiye giye ‘Kidz Point’e, chhotochheler cycle garage kemon cholchhe.
Privacy privacy kore chNechai bote, desher rastay mayer colleague-er sathe dekha hole, “Archanadi meyer biye kobe dichchhen?” shunle matha theke paa porjonto jwole jay thiki , kintu ultota dekhle ekhono je hNap-chheRe-bNachar moddhhye kothao awostir kNata khochkhoch kore na seta bolte parina.
Rastaghate jhotika alaper kotha na hoy chheRei dilam. 1:07 hote chollo, 1:03-er bus-er dekha nei keno, sei niye apekkharoto 3 jon jatriir songe “kichhu bolar achhe?” suuchok birokto drishtibinimoy porjonto ghote na, guchhiye sorkari transport-er 14 purush uddhar korar asha korle dukkho chhaRa kopale kichhu jutbe na.
Mene niyechhi, kintu mone newa hoye othheni bodhoy. tai sedin oto bhalo laglo.
GaRir abhabe bus-e chepei duurer bhalo Walmart-tay jete hoyechhilo. jhaRa 50 minute-er rasta. phNaka bus-e uthhei douRe pechhoner seatgulote chhoRiye boslam. Banti bag theke khata bar kore pata chhNiRlo. setake nikhNut koyekta borgokkhetre bhag kore, ektay ‘Police’, arektay killer-er ‘X’ likhe duhaate bhalo kore jhNakiye mathar opor chhNuRe dilo Shibalee.
Golar awaj jothasombhob niche rekhe amra gota rasta 'Killer' khelte khelte chollam. 6 joRa sotorko drishti druto eke aporer chokher chirunitollasi nite laglo, majhe majhe ediksedik theke chapa golay “I am dead” chhapiye achirei pulishruupii Chiranjiter ullasito hunkar, “Kuntaladi killer!”, barongbar amar dukkhii mukh. Shibaleer sobaike shanto rakhar byartho cheshta. fisfisiye haste gele keno je aro jore hasi peye jay ke jane.
TotokkhoNe byaparta amader sobari nojore poRechhe. amader stop thekei uthhechhilen bhodrolok. Bus-e uthhe inio pechhoner dike esechhen, ebong ekta boi bar kore poRchhen. ba poRar cheshta korchhen bola bhalo.
KaroN goto adhghontay tini ektai pata poRe jachchhen kromagoto. amader killer khNoja ebong dhora poRar (kingba paar peye jawar, Shibaleer moto dokkho killer hole) sathe sathe tNar mukhobhongir jothopojukto poriborton ghotchhe. aRchokhe koyekbar amader chokher dike cheye Killer khNojar cheshta korteo dekhechhi. emonki boiyer aRale hasi chapa kNapunio lukote parenni.
Ami anekdin dhore bolchhi, ‘Killer’ jatiiyo khelake chhelemanushi bole heyo korar kono karoN nei. sorkari porishebar khamti, recession emonki deshantorer rashtrobiplob porjonto ja parena, koyek khondo sada kagoj seta kore dekhiyechhe anayase. shesh shiiter dhuusor bikele phNaka bus-er aporichito jatriider monojog eke oporer proti phiriye enechhe. Personal space-er lokkhoNrekhar toyakka na korei.
Banti bollo, “extra kagoj achhe kintu, khelbe kina jigges korbo?” amader sokoleri mon chaichhilo, bhodrolok apotti korten kina janina, kintu saat pNach bhebe amra bollam, “thak. kii dorkar.”

February 14, 2011

Valentine-er khNoje: Sugata Banerji



BondhugoN, ini holen Sugata Banerji. nijoguNe blog-lekhok, anubaadok, chitrograhok. ‘chhilo kagoj, hoye gelo laal ronger beRalchhana’ r kusholii kaarigor. Abantor-er prodhan poramorshodata. jekonorokom jantrik, ebong “dhus, blogging kore ke kobe boRolok hoyechhe” gochher manosik golojoger muhuurte Abantor enar opor chokh bondho kore bhorsa kore thake.
Sorbopori, jiibonta jodi Manmohon Desai-er cinema hoy, tobe Sugata Kumbhomelay hariye jawa amar baki ardhek.
Porichoygnapon shesh. Sugata, ebar sabha apnar.

E ki geroy poRa gelo bolun diki! Kuntala jakhon bollen, “Guest post likhte hobe.” takhon ami Abantor Prolaap er ghaRe chepe bikhyato hobar lobh samlaate na pere phos kore hNya bole diyechhilam bote, kintu ekhon dekhchhi kaj ta motei ato sahoj noy.
Tar opor abar Valentine's Day upolokkhe. moshai, dekhchhen ekta lok 29 bachhor dhore khete khuteo ekta valentine jogaR korte parlona (jekhane kalker kochikNachara dibyi joRay joRay ghurchhe) ar apni kina taar kata ghaye nuner chhite dite elen. bhab ta jeno, "Apnar je Valentine's Day te kothao jawar nei seta to amra jenei gechhi, kajei din na ekta blog post likhe!" e jeno school poRua chhatro ke goru chhaRa onyo kichhur rachona likhte bola. sampurno out of syllabus.
Kintu ki ar kora jabe. jene jakhon felechhen-i, takhon ar lukiye labh nei. Valentine's Day ta amay lekhalikhi korei katate hochchhe bote e bachhor. tobe bole rakhi, sedin ar dur noy, jakhon amio ekti Valentine pabo. Ar jara ghaR neRe bolchhen, "jani jani, Sugata notun laptop kimba camera kinchhe" taader janiye rakhi je na, ami asol ekti raktomangser narir katha bolchhi.
Karonta ar kichhui noy, gato maase amar chhoto boner biye dewar por amar baba-ma ebar uthepoRe legechhen amar jonyo patri khNujte. hNya, onarao janen je amar dwara o kaaj ta hobar noy.
Kintu pochhondo moto meye ki pawa jabe? shuru te ami Bagha Byne er moton bolechhilam bote, "ekta dekhe shune bechhe nilei holo!" kintu ekhono porjonto ja trend dekha jachchhe, taate Sukumar Ray'r sei beRal er moton matha neRe bolte ichchhe korchhe, "seti hochchhena, se hobar jo nei."
Ekti naamkora matrimony website e giye kichhu patrir profile ghNete ja kichhu jante parlum, ekhane tule dhorchhi.
Prothom samosya holo amar uchchota. pordar rod dhore jholajhuli na korleo Complan jatheshtoi kheyechhi chhotobela theke. ta satteo ami jakhon ekta boyes er por ar baRlamna, takhon amar moner kone ekta sandekho uNki merechhilo, je ei pNaach foot char inchi ta jatheshto noy. kintu manusher mon to, sei sandeho ta ke satoronchir tolay jhNetiye dibyi 20 bachhor boyesh obdhi asha kore gelam je ami arektu baRbo. ekhon bastober mukhomukhi hote hochchhe. sei je Mandar Bose Feluda ke bolechhilo, "purush manush, saRe pNaach foot er kom dekhlei sandeho korben" seta rajyer meyera mone rekhechhe, ebong patrer minimum height requirement dekhte gelei dekhi saRe pNach foot. aneker khetre taaro beshi.
Dwitiiwo samosya holo amar rojgaar. amra Ph.D. student ra je kirakom maaine paai, seta nischoi sobai janen, ar jodi na janen tahole jante cheye lojja debenna. amar mone ekta ksheen asha chhilo jehetu ami ei samanyo maine ta dollar e rojgar kori, desher takay hoyto eta besh lobhoniyo ekta anko. o ma! patrer nyunotamo rojgar dekhte giye dekhi sobbai amar theke beshi rojgar kora bor chaay. taao deshe thakle. Americay thakle to kathai nei! je meyera IT sector e kaj kore tara to amar theke anek beshi maine paay, kajei tara amay fireo dekhte raaji noy. kom rojgar cholte pare, ekmatro jodi... thik dhorechhen... patrer uchchota beshi hoy.
Tritiiyo samosya, ami Ghoti. mane ami Bangal der biruddhe kichhu bolchhina, kintu baba-mayer prorochonatei bolun ba rokter doshe, ami chirokaal-i Mohunbagan ke support kore esechhi. takhon ke janto je etto etto bhalo meyera profile e "Family should be from East Bengal" likhe bose thakbe? athocho bhebe dekhun, amar didima-thakuma dujonei Purbo-bonger manush. arthat amar baba ma dujonkar shorirei 50% Bangaler rakto (amar daadur bhashay bolte gele “bagh”). aage theke jana thakle chhotobela theke East Bengal ke support korai jeto, kintu ekhon ar haat kamRano chhaRa goti nei.
Aboshyo amaro kichhu pachhondo-apachhondo achhe. maane jodi dekhe shunei biye korte hoy tahole to ar sei "Love is blind" gochher samosya thakena, kajei jodio dekhchhi sob meyerai smart, jovial, adjusting, homely, talented, loving, caring, honest, sincere, lovable, respectful ebong understanding, jakhon keu bole se "Interested in Dancing ,Visiting ,Reading , honesty ....etc." takhon sandeho hoy je byapargulor priority ta hoyto tar kachhe thik porishkar noy. keu jakhon lekhe tar hobby photography, athocho tar sange ekti webcam e tola jhapsa chhobi day jeta dekhe manush chena praay asambhab, takhon ektu hNochot khete hoy boiki. ar karur profile e jodi dekhi sab kichhui capital letter e lekha, tar sange biye korte sahos hoyna. Internet er jagote capital letter holo chNechiye kotha bolbar samotulyo, ar jar profile-ei emon baajkhNai golar abhas, tar sange ghor kora ta katota sukher hobe se bishoye sandeho hoy.
Bon ke kothata bolate se bollo, "tor ar biyer asha nei. tui bhishon pitpite hoye gechhis."
Kintu ami asha chhaRini. amar baba ke jatotuku chini, je kaaje ekbar haat day, setar shesh na dekhe chhaRena. ebochhor biye debe bole jakhon ekbar thik korechhe, ami motamuti nishchinto je e bachhor biye debei. se meye pawa jaak, ar naai pawa jaak.
Kajei samner Valentine's Day ta, asha kora jaay, amay antoto ar blog likhe katate habena. kimba oi kochikNachader moton amio amar Valentine er sathe laal balloon haate photo tule blog e lagabo. totodin oder ga-jwalano nyaka nyaka haab-bhaab sojhyo kortei hochchhe.

February 13, 2011

Punormushik


Amar dosh nei bishwas korun.
Ami sotyi cheyechhilam Banglay likhte. Kamalika, Mohor tarpor Ovshake-o jokhon bollen, ami Banglay lekha shuru korar dwidhata katate ar deri korlam na. ebong amar VAIO sakkhii, ei somporkotay antoto amar commitment-er abhab chhilona.
Sejonyoi ‘morjada’ likhte giye jokhon gune gune 17 baar amar keyboard ‘ref’ likhte sref aswiikar korlo, ar ei 17 baarer moddhye 9 baar ‘borgiiyo J’ ar baki 8 baar ‘antosthyo J’ likhlo, tokhono amar songkolpe ektuo taan poReni. Font nijer khushimoto bodlate na parar ‘compromise’ ke tokhono nichhok ‘adjustment’ bole chalate ami boddhoporikor. je post ta type korte aage 15 minute lagto, seta 40 minute dhore type korteo pichhpa hoini ami.
Kintu jekono dwipakkhik somporker motoi Abantor ar tar prolaper madhyomer somporkota shudhu tader ekchetiya noy. eder dujoner moddhye ami achhi, amar deR dojon sohridoy pathhok achhen. amar office-er computer-e tai shobder bodole baksho dekhte ami raji achhi, kintu pathhokder ei akaroN atyacharer mukhe phelte raji noi. tar opor ‘right click’ ar ‘backspace’hiin already bechara pathhokder opor khNaRar ghaa, Abantor tNader juktakkhor poRte dichhena. juktakkhor to chhaRun moshai, aa-kar i-kar o-kar porjonto akkhorer gaa theke tene khule nichchhe.
Kajei somporkota theke beriye aste holo.
Sugatar theke dhar newa prochur somoy, sahajyo ebong bhobishyote aro anek sahajyer bishwosto protisruti thaka sotweo. karoN shesh porjonto sukher theke swosti bhalo, dushtu gorur theke shuuNyo goyal bhalo, ebong hNya, kokhono kokhono matribhashar bondhur methhopother chaite bideshi bhashar mosriN jhNachokchoke rajpoth o bhalo.
Tai ami swechchhay punormushik abostha prapto holam. jNara hotash holen tNaderke sorry, jNara abar purono Abantor phire peye khushi tNaderke ‘high five’ ar nijeke dewa protisrutir sathe je ei chhotokhato asubidhegulo katiye othhar prothom sujog pawa matro ami phire asbo ‘a-aa-ko-kho’r kachhe.
Totodin Abantor ABCD-r ghaRe bhor diyei choluk.

February 09, 2011

স্বপ্ন-পুরাণ


বান্টির চেহারা দেখে আমাদের আড্ডা থামাতে হল। উসকোখুসকো চুল, টকটকে লাল চোখ, সে চোখে উদভ্রান্ত দৃষ্টি। পিঠের দশমণি ব্যাকপ্যাক সোফায় ছুঁড়ে ফেলে কোক জিরোর বোতল তুলে গলায় ঢালতে গিয়ে লেবেলের দিকে চোখ পড়ায়, ধ্যাত্তেরিকা, জঘন্য বলে আমার দিকে বজ্রদৃষ্টি হেনে দুমদাম করে গিয়ে ফ্রিজ খুলে ফুল-ফ্যাট কোকের বোতল গলায় উপুড় করল বান্টি।

সোমা বলল, “বাসরে!”, সুদীপ্ত বলল, “দেখিস বাবা”, সীবলী উদ্বিগ্ন গলায় জিজ্ঞেস করল, “কী হয়েছে বান্টি!”

আমি তখনও বজ্রদৃষ্টির ধাক্কা সামলাচ্ছিলাম, তাই কিছু বললাম না।

কোকের বোতল নামিয়ে রেখে বান্টি জানাল আজকে ওর দুখানা হোমওয়ার্ক-জমা আর একটা প্রেজেন্টেশন ছিল, তার ওপর কাল সারারাত ধরে পাগলের মত ছোটাছুটি।

আমরা সমস্বরে বললাম, “সেকিরে, ছুটলি কেন? আর কোথায়ই বা ছুটলি?”, “জিমে যাচ্ছিস বুঝি আজকাল?” বেঁকা হাসি হেসে আমি জানতে চাইলাম।

জানা গেল সমস্ত কাজ শেষ করার পর ভোর চারটে নাগাদ যেই না দুচোখের পাতা এক করেছে, অমনি বান্টির স্বপ্নে কোত্থেকে প্রকাণ্ড এক পাগলা হাতি এসে উপস্থিত। তার পরের দুঘণ্টা ধরে বন বাদাড় ভেঙে, ISI-এর মাঠ পেরিয়ে, বেহালা চৌরাস্তা ধরে পাগলা হাতির তাড়া খেয়ে ছুটে বেড়িয়েছে বান্টি।

“স্বপ্নেও যদি এত পরিশ্রম করতে হয়” বান্টির কাঁদকাঁদ মুখটা দেখে এমনকি আমারও মায়া লাগে।

ভেবেচিন্তে দেখা গেল, বিশ্রামের স্বপ্ন খুব কমই দেখে লোকে। অন্তত আমরা কেউ দেখেছি বলে মনে করতে পারলাম না। কেউ কি কখনো স্বপ্নে নিজেকে শবাসন করতে দেখেছে? অথবা নির্জন নদীতীরে বসে ছিপ ফেলে মাছ ধরতে? বান্টি উত্তেজিত হয়ে জানতে চায়, “কিংবা ঠ্যাঙের ওপর ঠ্যাং তুলে YouTube?

তা নয় কেবল ছোটাছুটি। হাঁটছি, দৌড়চ্ছি, বাড়ি খুঁজে পাচ্ছি না, অঙ্ক পরীক্ষায় ইতিহাসের প্রশ্নপত্র দিয়েছে, ঘাম ছুটছে, মা বকছে, শকুন্তলা কালীপূজোর মেলায় সাঁইসাঁই করে নাগরদোলা ঘুরছে…….ঘটনার ঘনঘটা যাকে বলে।

আমাদের আড্ডা স্বপ্নের পথ ধরে চলল। স্বপ্ন কেউ কেন দেখে, ক’রকমের স্বপ্ন হয়, তারা রঙিন নাকি সাদাকালো নাকি সেপিয়া, কোন স্বপ্নের মানে কী, কখন দেখলে স্বপ্ন সত্যি হবেই হবে, কুকুর বেড়াল স্বপ্ন দেখে কিনা, (বান্টি ন্যায্যতই জানতে উৎসুক, পাগলা হাতি স্বপ্নে মানুষের পেছনে ছোটাছুটি করে ক্লান্ত হয় কিনা) কোন বয়স থেকে স্বপ্ন মনে রাখা যায়, স্বপ্ন আসলে কতক্ষণ ধরে চলে ইত্যাদি প্রভৃতি।

গুগ্‌ল্‌ জানাল মানুষের স্বপ্নের সীমা তিরিশ সেকেন্ড থেকে তিন মিনিট। আমরা বান্টির দিকে চেয়ে ভুরু নাচাতেই Google-এর প্রতি অসীম তাচ্ছিল্য ছুঁড়ে দিল বান্টি। “বললেই তো হবেনা, আমি কাল রাতে ঝাড়া দুঘণ্টা ধরে ছুটেছি। এক মিনিট বরং বেশি হতে পারে, কম নয়।”

আড্ডার শেষে বোঝা গেল আমাদের প্রত্যেকের স্বপ্নের একটা চেনা ছক আছে। নার্ভাস সোমশ্রী এখনও মাধ্যমিকে লেট করে পরীক্ষার হলে ঢোকার স্বপ্ন দেখে। সুদীপ্ত স্বপ্নে পুরুলিয়ার ধূধূ মাঠে পোঁতা গোলপোস্টে এখনও নির্ভুল শট নেয়। সাত চড়ে রা না কাড়া সীবলী সারারাত ধরে অবোধ্য ভাষায় কথা বলে যায়। কুঁড়ের বাদশা বান্টি পাগলা হাতির সামনে ছুটে এক্সারসাইজের কোটা পূরণ করে। সারাদিন ব্লাইন্ড-বন্ধ, আলোবাতাস নিয়ন্ত্রিত ঘরে কাটিয়ে এসে আমি স্বপ্নে যতদূর চোখ যায় ততদূর বিস্তৃত সবুজ চাবাগান দেখি। বাগানের প্রান্তে একটা বাড়ির বারান্দায় টাঙানো দোলনায় বসে পা দোলাতে দোলাতে আমি চায়ের কাপে আলতো চুমুক দিচ্ছি। দুধসাদা বোন চায়নার গায়ে সোনালি ফার্স্ট ফ্লাশ। দূরের পাহাড়ের মাথায় রোদ্দুর এসে পড়েছে।

এই দৃশ্যটা আমি ঘুমিয়ে, ডেস্কে বসে, বাসস্টপে এমনকি এক্সপ্রেস চেকআউট কাউন্টারের লাইনে দাঁড়িয়েও দেখি। যখন চাই তখনই দেখতে পারি।

আমার মত যদি জানতে চান, সব স্বপ্নের মধ্যে সেরা স্বপ্ন হল দিবাস্বপ্ন। আপনি জেগে জেগে কী স্বপ্ন দেখেন?

February 08, 2011

জয় জয় দেবি….


পশ্চিমবঙ্গের শতশত বালিকা বিদ্যালয়ের হাজার হাজার ছাত্রীর আজ মহোৎসব।
ক্লাস ওয়ানের কন্যার আজ প্রথম শাড়ি পরার দিন। বাসন্তীরঙের শাড়ি, মাথার প্রায় অদৃশ্য চুলে হলুদ ফিতের মস্ত ফুল, আর দুহাতে গোলাপি চুড়ি পরে গর্বিত পায়ে সে মায়ের সাথে হেঁটে হেঁটে গিয়ে রিকশায় উঠবে। সবকিছুর রঙ ম্যাচিং করে পরাটা যে চূড়ান্ত ব্যাকডেটেড এবং বোকাবোকা, এটা বুঝবার জন্য তার কোনো ফ্যাশন গুরুর টিপসের দরকার নেই।
ক্লাস সেভেনের মেয়েটিও হাতে স্বর্গ পেয়েছে আজ। স্কুলের পূজোর তোড়জোড়ে এবছর তার প্রথম প্রবেশাধিকার। ক্রাফট রুমে মস্ত গামলা ঘিরে বসে কড়াইশুঁটি ছাড়াতে ছাড়াতে তার মন আর চোখ পড়ে থাকে ঘরের অন্যপ্রান্তে। যেখানে রমাদিদিভাইয়ের নেতৃত্বে ক্লাস নাইন টেনের মেয়েরা রঙিন কাগজ, শোলা, ফেভিকলের শিশি, কাঁচি নিয়ে প্রতিমার চালচিত্র বানাতে মগ্ন। সেই ভিড়ের মধ্যে সবথেকে উজ্জ্বল সুতপা। পড়াশোনায় ভাল, বিতর্কসভার অবিসংবাদিত ফার্স্ট প্রাইজ, ‘চিত্রাঙ্গদা’র অর্জুন। আমাদের মেয়েটি কড়াইশুঁটি ছাড়ায় আর চেয়ে চেয়ে দেখে, কী ভাল, কী সুন্দর। হঠাৎ মন খারাপ হয়ে যায় তার।
সুতপা আর তার বন্ধুদেরও উত্তেজনার শেষ নেই। বহু বছর দূর থেকে অপেক্ষার পর, অবশেষে সবকিছুর কেন্দ্রবিন্দুতে তারা আজ। গত কয়েকদিন ধরে প্রতিমা কেনা, হলঘরের পুরনো আলপনায় নতুন করে রঙ বোলানো, আশেপাশের স্কুলগুলোতে পুজোর নেমন্তন্ন নিয়ে যাওয়া, ছুতোনাতায় স্টাফরুমে যাতায়াতের অবাধ অধিকার। সেভেন এইটের বিশ্বপাকা মেয়েগুলোকে দেখে রাগের বদলে মায়াই বেশি হয় ওদের এ’কদিন। এত ছোট ওরা।
আজ সকালে সূর্য ওঠার প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই স্কুলে এসেছে ওরা। মায়ের আলমারি থেকে সবথেকে পছন্দসই শাড়িটা বেছে নিয়ে। মা অবশ্য অন্য একটা পরতে বলেছিল। সারাদিন যেটা পরে থাকতে অসুবিধে হবে না। গরম লাগবে না। কিন্তু মায়ের কথা শোনবার দিন নয় আজ।
বিরাট দুর্গের মত পাঁচিল ঘেরা হলুদরঙের স্কুলবাড়িটার আজ মহা আনন্দের দিন। সবুজ লোহার গেট আজ সারাদিন খোলা। পাঞ্জাবিশোভিত বাহাদুরভাইয়ের চেয়ার পেরিয়ে আজ যে কেউ ঠাকুর দেখতে আসতে পারে, লাইন দিয়ে বসে খিচুড়ি আলুরদম, চাটনি পাঁপড় লেডিকেনি খেতে পারে। যে কেউ। এমনকি ছেলেরাও।
গুনে দেখলাম, এ উৎসবের প্রবেশাধিকার ফুরিয়েছে আমার এই নিয়ে ১৩ বছর। যদিও ভাবতে বসে কালকের দিনটার চেয়ে ওই সকালটা আমার বেশি স্পষ্ট মনে পড়ল।

February 04, 2011

ভাল থাকার উপায়


এক মাস পুরনো হয়ে গেলে কি হবে, নতুন বছরে ঝাঁ চকচকে জীবন শুরু করার মরীচিকা আমাকে এখনও পিছু ছাড়েনি। আমি এখনও ভাল ছাত্রী হতে চাই, এখনও পাঁচ কেজি ওজন কমাতে চাই, এখনও প্রতি মাসে অ্যাকাউন্টে আরেকটু বেশি করে টাকা জমাতে চাই।

এখনও আমার ইউটিউবের হাত থেকে মুক্তির স্বপ্নে জং ধরেনি।

কী কী করলে আমার সব স্বপ্ন বাস্তব হবে জানতে চাওয়ায় এক হিতৈষী বললেন, “প্রাণায়াম কর।”

“ওহ, এই ব্যাপার” বলে আমি স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতেই, হিতৈষী বলে উঠলেন, “এই ব্যাপার কী বলছ মেয়ে, ব্যাপার সোজা মোটেই না”।

জানা গেল, প্রাণায়াম নিয়মমত করতে পারলে আপনার অনন্ত যৌবন গ্যারান্টি, কিন্তু ভুলভাল জায়গায় ভুলভাল নিঃশ্বাস ফেলেছেন কি আর রক্ষা নেই। অগত্যা মনোযোগ দিতে হল। খাতা পেন বার করে টুকে নিলাম, ভস্ত্রিকা পাঁচ মিনিট, কপালভাতি পনেরো মিনিট, অনুলোম বিলোম দশ মিনিট, চার নম্বর প্রাণায়াম অর্থাৎ কিনা......এই পর্যন্ত শুনেই আমি চেঁচিয়ে বললাম, “দাঁড়ান দাঁড়ান, আমার সকাল তো মোটে তিরিশ মিনিটের, এত সব করব যদি, তো মর্নিং ওয়াক-এই বা যাব কখন, মুখে পেঁপের রসই বা মাখব কখন, আর একফাঁকে টুক করে বারোখানা ই মেল অ্যাকাউন্টই বা চেক করব কখন!”

হিতৈষী বললেন, “কেন ওই যে বললাম, প্রাণায়াম?”

ওজন কমাবে প্রাণায়াম? আলবাত। গ্লোয়িং স্কিন? কেন অনুলোম বিলোম করলে যে? সমতল ভুঁড়ি? আরে কপালভাতি আছে কী করতে?

মন ভার, অখিদে, হুট বলতে মাথাগরম? প্রাণায়াম প্রাণায়াম প্রাণায়াম।

অবিশ্বাসী মুখ গোঁজ করে বসে থাকি আমি। হঠাৎ খেয়াল হতে ভয়ানক খুশি হয়ে প্রায় চেচিঁয়ে উঠি, “আমার যে মাঝে মাঝেই ঠাণ্ডায় গলা বন্ধ হয়ে যায়, সেটার কী হবে? আর আজকাল যে একটার বেশি দুটো বিস্কুট খেলে বুক জ্বালা করে আর সিঁথি ভুল হলে মাথার এধারে ওধারে ইতিউতি সাদা দেখা যায় সেগুলোরই বা কী?”

হিতৈষী প্রবল অনুকম্পার দৃষ্টি হানেন আমার দিকে। বলেন, “হুম, গলার জন্য সকালে উঠে এক কাপ গরম জলে মধু আর লেবু চেষ্টা করে দেখতে পার। চুল পাকার জন্য অব্যর্থ শীর্ষাসন, নয়ত প্রত্যহ সকালে একটি করে আমলকি।”

শেষ দুটোর কোনটাই সম্ভব না শুনে মুষড়ে পড়েন তিনি। অবশ্য তাঁর থেকেও বেশি মুহ্যমান হয়ে বসে থাকি আমি। একা প্রাণায়ামে রক্ষে নেই তায় লেবু গরম জল দোসর। আমার এমন সুন্দর ইউটিউব মণ্ডিত সকালগুলোর এমন অপচয় দেখে।

অন্যমনস্ক হয়ে হিতৈষী বলতে থাকেন, “অম্বলের কথা কী যেন বলছিলে?” আমি রেগে গিয়ে বলি, “হোক গে অম্বল। আর কিছু করতে পারব না আমি ঘুমচোখে।” কান না দিয়ে তিনি বলতে থাকেন, “সকালে উঠেই যদি বড় বড় দু'গ্লাস জল ঢকঢক করে খেতে পার...”, এই পর্যন্ত শুনে আমি কান খাড়া করি, এইটা শুনতে মন্দ লাগছে না, “...তারপর মুখ চেপে ধরে নাক আর কান দিয়ে সেই জল...”

আমি দুহাতে কান চেপে ছিটকে উঠে পড়ি।

চকচকে ত্বক আর কুচকুচে চুল আর অম্বলবিহীন বেঁচে থাকতে হলে আমার এখন ভস্ত্রিকা প্র্যাকটিস করা উচিত ছিল। কিংবা এক ইন্দ্রিয় দিয়ে জল টেনে আরেক ইন্দ্রিয় দিয়ে ছাড়া। বুঝতেই পারছেন, ভাল কথা কানে ঢোকে না আমার। বদলে আমি এই ফাজিল পোস্ট লিখতে বসেছি। তবে আজ এই পর্যন্তই, কারণ বেরনোর আগে রিয়্যাল হাউসওয়াইভস-এর শেষটুকু দেখে যাব ঠিক করেছি।

এই দিয়ে যতটুকু ভাল থাকা যায়, ততটুকুতেই চলবে আমার। অন্তত এ বছরে।


 
Creative Commons License
This work is licensed under a Creative Commons Attribution-NonCommercial-NoDerivs 3.0 Unported License.